শিখতে থাকুন

আপনি তো নিবন্ধিত হননি।
শিক্ষামূলক ওয়েবসাইট “তা প্ল্যাটফর্ম” টিতে আপনি এখনই নিবন্ধন করুন, এর দ্বারা আপনার অগ্রগতিকে অঅপনি ধরে রাখতে পারবেন, আপনার সাংকেতিক চিহ্ন বা পয়েন্টগুলির সংখ্যা একত্রিত করতে পারবেন এবং বিভিন্ন প্রকারের প্রতিযোগিতায় আপনার প্রবেশের সুযোগ হবে। তাই এই শিক্ষামূলক ওয়েবসাইট “তা প্ল্যাটফর্ম” টিতে আপনি নিবন্ধিত হন, আপনি সেই পাঠ্য বিষয়গুলিতে একটি বৈদ্যুতিন সার্টিফিকেট পাবেন, যে পাঠ্য বিষয়গুলির আপনি জ্ঞান লাভ করবেন।

মডেল: বর্তমান বিভাগ

পাঠ্য বিষয় শিরোনাম: সফর বা যাত্রা কিংবা পর্যটনে পবিত্রতা অর্জনের বিধিবিধান

বিবরণ:‎ প্রকৃত ইমানদার মুসলিম ব্যক্তি সফরের অবস্থায় বা যাত্রার সময় পবিত্রতা অর্জনের ‎কতকগুলি বিধিবিধানের মুখাপেক্ষী হয়। এই অনুচ্ছেদে আপনি সেই সমস্ত বিধিবিধানের ‎মধ্যে থেকে কতকগুলি বিষয় জানতে পারবেন।

উদ্দেশ্য:  সফর বা যাত্রা কিংবা পর্যটনে পবিত্রতা অর্জন করার বিধিবিধানের জ্ঞান লাভ করা।

অন্য একজন ছাত্রকে গণনা করুন। এই পাঠ্য বিষয়টি সম্পূর্ণ করুন

সফর বা ভ্রমণে মানুষের অবস্থার অনেক পরিবর্তন ঘটে। সুতরাং বাসস্থানে ‎অবস্থান করার সময় যে সমস্ত জিনিস তার কাছে থাকে, সে সমস্ত জিনিসের ‎মধ্যে থেকে সফরের অবস্থায় অনেক কিছু তার কাছে থাকে না। অর্থ: আবু হুরায়রা [রাদিয়াল্লাহু আনহু] হতে বর্ণিত, তিনি বলেন: আল্লাহর বার্তাবহ ‎রাসূল বিশ্বনাবী‎‏‎ মুহাম্মাদ [সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম] বলেছেন: “সফর বা ভ্রমণ ‎হলো শাস্তির অংশস্বরূপ। তাই এই সফর বা ভ্রমণ তোমাদের সফরকারীকে তার ‎পানাহারে ও ঘুমে ব্যাঘাত ঘটায়। অতএব তোমাদের সফরকারী যখনই সফরের কাজ ‎শেষ করবে, তখনই সে তাড়াতাড়ি তার পরিবারবর্গের কাছে ফিরে আসবে”। ‎(বুখারি 1804, 3001, 5429), এবং মুসলিম (1927)‎ তাই যে ব্যক্তি সফর বা ভ্রমণে যাবে, সে ব্যক্তির জন্য সফরের ও পবিত্রতা অর্জনের ‎এবং আরো অন্যান্য বিধিবিধান জেনে নেওয়া উচিত। আর সেই বিধিবিধানের অন্তর্ভুক্ত ‎কতকগুলি বিষয় নিম্নে উপস্থাপন করা হলো: ‎

১। মলমূত্র ত্যাগ করার জন্য উপযোগী ও নির্ধারিত স্থান চয়ন করা

মুসলিম ব্যক্তির জন্য সেই সমস্ত জায়গায় মলমূত্র ত্যাগ করা এবং সেই সমস্ত জায়গাকে ‎নোংরা করা হারাম বা অবৈধ, যে সমস্ত জায়গায় লোকজন যাতায়াত করে, বসে বা ‎সম্মিলিত হয়, যেমন:- ছায়া, গাছ বা বসার স্থান ইত্যাদি। ‎

প্রকৃত ইসলাম ধর্মের কতকগুলি আলেম বা পণ্ডিত বলেছেন: খোলা জায়গায় বা মাঠে ‎অথবা মরুভূমিতে মলমূত্র ত্যাগ করার সময় নরম স্থান তালাশ করা মোস্তাহাব বা উত্তম ‎ও পছন্দনীয় কাজ। যাতে করে প্রস্রাব করার সময় প্রস্রাবের ছিটেফোঁটা থেকে নিরাপদ ‎থাকা যায় আর প্রস্রাবের ছিটেফোঁটা নিজের দিকে ফিরে না আসে। তাই প্রস্রাব করার ‎সময় শক্ত স্থান বর্জন করা উচিত। তদ্রূপ প্রস্রাব করার সময় বাতাস প্রবাহিত হওয়ার ‎দিক নির্ণয় করে প্রস্রাব করা উচিত। যাতে করে প্রস্রাবের ছিটেফোঁটা থেকে নিরাপদ ‎থাকা যায় আর প্রস্রাবের ছিটেফোঁটা নিজের দিকে ফিরে না আসে। ‎ ‎

২। মলমূত্র ত্যাগের সময় নিজেকে মানুষের দৃষ্টির অগোচরে রাখা।

মলমূত্র ত্যাগের সময় মানুষের দৃষ্টি বা নজর থেকে নিজেকে আড়ালে রাখার মাধ্যমে বা ‎দূরে রাখার মাধ্যমে লুকিয়ে রাখা অপরিহার্য। যেহেতু মুগীরা বিন শুবা [রাদিয়াল্লাহু ‎আনহু] হতে বর্ণিত, তিনি বলেন: আমি এক সফরে আল্লাহর বার্তাবহ রাসূল বিশ্বনাবী‎‏‎ ‎মুহাম্মাদ [সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম] এর সাথে ছিলাম। এই অবস্থায় তিনি আমাকে ‎বললেন: হে মুগীরা! তুমি জলপাত্রটি ধারণ করো। তাই আমি তা ধারণ করলাম। ‎অতঃপর তিনি আমার দৃষ্টির অগোচরে বহু দূরে গিয়ে নিজের প্রাকৃতিক প্রয়োজন ‎সারলেন। (বুখারী 363, মুসলিম 274)। অন্য হাদীসে এসেছে: আল্লাহর বার্তাবহ রাসূল বিশ্বনাবী‎‏‎ মুহাম্মাদ [সাল্লাল্লাহু আলাইহি ‎ওয়াসাল্লাম] নিজের প্রাকৃতিক প্রয়োজন সারার জন্য দৃষ্টির অগোচরে বহু দূরে গমন ‎করতেন। (মুসনাদ ইমাম আহমাদ 15660)। ‎

আব্দুল্লাহ বিন জায়াফার [রাদিয়াল্লাহু আনহুমা] হতে বর্ণিত। তিনি বলেন: আর ‎আল্লাহর বার্তাবহ রাসূল বিশ্বনাবী‎‏‎ মুহাম্মাদ [সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম] খোলা ‎জায়গায় বা মাঠে অথবা মরুভূমিতে মলমূত্র ত্যাগের সময় নিজেকে আড়ালে রাখার জন্য ‎বা লুকিয়ে রাখার জন্য তাঁর কাছে প্রিয় বিষয় ছিলো: উচ্চস্থান বা উঁচু জায়গা অথবা ‎খেজুরের কতকগুলি গাছ। (মুসলিম ৩৪২)। অন্য হাদীসে এসেছে: আল্লাহর বার্তাবহ রাসূল বিশ্বনাবী‎‏‎ মুহাম্মাদ [সাল্লাল্লাহু আলাইহি ‎ওয়াসাল্লাম] নিজের প্রাকৃতিক প্রয়োজন যখন সারার ইচ্ছা করতেন, তখন তিনি নিজের ‎কাপড় ততক্ষণ পর্যন্ত উত্তোলন করতেন না, যতক্ষণ পর্যন্ত তিনি মাটির কাছে না হয়ে ‎যেতেন। (আবু দাউদ ১৪)। ‎

তায়াম্মুমের বিবরণ ‎

তায়াম্মুম হলো নামাজ পড়ার জন্য এক প্রকারের পবিত্রতা অর্জন করা। প্রকৃত ‎ইসলামের শিক্ষা মোতাবেক পানি না থাকার সময় অথবা পানি ব্যবহার করার ক্ষমতা না ‎থাকার সময় তায়াম্মুম করা বৈধ। তায়াম্মুম করা পদ্ধতি হলো: মুসলিম ব্যক্তি তার ‎নিজের দুই হাত মাটিতে মারবে, তারপর সে তার দুই হাত দিয়ে নিজের মুখমণ্ডল ‎মাসাহ করবে, অতঃপর বাম হাতের তালু দিয়ে ডান হাতের তালুর উপরের অংশ ‎মাসাহ করবে এবং ডান হাতের তালু দিয়ে বাম হাতের উপরের অংশ মাসাহ করবে।

মুসলিম ব্যক্তি নিজের এলাকায় বা নিজের শহরের বাসস্থানে অবস্থান করার সময়ের ‎তুলনায় তার সফরের সময়ে সে তায়াম্মুম করার বেশি মুখাপেক্ষী হয়। যেহেতু সফরে ‎তায়াম্মুম করার উপযুক্ত অনেক কারণ থাকে। যেমন পানি না থাকা অথবা পানির খুব ‎প্রয়োজন থাকা সত্ত্বেও অল্প পানি থাকা ইত্যাদি।

অথবা পানির দ্বারা ওজু করলে প্রচণ্ড কষ্ট হয়, বিশেষ করে প্রচণ্ড ঠাণ্ডা বা শীতের ‎সময় অথবা অসুস্থতা বা রোগের সময়। আর মুসলিম ব্যক্তি সফরে অনেক সময় এই ‎সব পরিস্থিতি বা অবস্থার সম্মুখীন হয়। ঠাণ্ডা বা শীত বলতে ওই ঠাণ্ডা বা শীত বুঝানো ‎হয়েছে, যে ঠাণ্ডা বা শীতের কারণে মানুষের গুরুতর কষ্ট হয় এবং তাতে অসুস্থতার ‎আশঙ্কা হয় অথবা কঠিন যন্ত্রণাদায়ক হয়। ‎

তায়াম্মুম করা বিশেষ করে ওই সময়ে বৈধ, যে সময়ে নিকটবর্তী স্থানে পানি থাকে না ‎অথবা পানি গরম করার ব্যবস্থা থাকে না। ‎

চামড়ার বা কাপড়ের দুই মোজার উপর মাসাহ করার বিবরণ

চামড়ার বা কাপড়ের দুই মোজার উপর মাসাহ করা হলো: প্রকৃত ইমানদার মুসলিম ‎ব্যক্তি চামড়ার বা কাপড়ের এমন মোজা বা জুতা অথবা পায়ের আবরণ ইত্যাদি পরিধান ‎করবে, যে সেই মোজা বা জুতা অথবা পায়ের আবরণ দ্বারা দুই পা সম্পূর্ণরূপে ঢেকে ‎দিবে, ছোট ও বড় উভয় প্রকার অপবিত্রতা থেকে সম্পূর্ণরূপে পরিশুদ্ধ বা পবিত্র ‎থাকার অবস্থায়। এরপর ওজু করার সময় যখন মাথা ও কানের মাসাহ করে নিবে, ‎তখন তার জন্য দুই পা ধৌত করার জন্য সেই মোজা বা জুতা অথবা পায়ের আবরণ ‎খুলে রাখার প্রয়োজন হবে না। বরং সে তার দুই পায়ের উপরের অংশে সেই মোজা বা ‎জুতা অথবা পায়ের আবরণের উপর মাসাহ করবে। ‎

চামড়ার বা কাপড়ের দুই মোজার উপর মাসাহ সঠিক হওয়ার শর্ত হলো: দুই মোজা ‎যেন পবিত্র হয়, আর সেই দুই মোজার দ্বারা যেন দুই পা সম্পূর্ণরূপে ঢাকা বা আবৃত ‎করা হয়। এবং সেই দুই মোজা যেন পরিশুদ্ধ ও পবিত্র অবস্থায় পূর্ণরূপে ওজু করার ‎পর পরিধান করা হয় আর সেই ওজুতে যেন দুই পা ধৌত করা হয়। মুসলিম ব্যক্তি ‎যদি চামড়ার বা কাপড়ের দুই মোজা পরিধানকৃত অবস্থায় একটানা অবিচল থাকে, ‎তাহলে মুকিমের জন্য অর্থাৎ যে ব্যক্তি নিজের এলাকায় বা নিজের শহরের বাসস্থানে ‎অবস্থান করবে, তার জন্য মোজার উপর মাসাহ করার সময়সীমা হলো এক দিন এক ‎রাত (24 ঘন্টা)। এবং মুসাফিরের জন্য বা ভ্রমণকারীর জন্য মোজার উপর মাসাহ ‎করার সময়সীমা হলো তিন দিন এবং তিন রাত (72 ঘন্টা)।

আর প্রকৃত ইমানদার মুসলিম ব্যক্তির জন্য চামড়ার বা কাপড়ের দুই মোজার ‎উপর মাসাহ করার সময়সীমা পার হয়ে গেলে পুনরায় ওজু করার সময় তার দুই ‎পায়ের দুই মোজা খুলে ফেলতে হবে। অথবা তার প্রতি যখন জুনুবী ইত্যাদি হওয়ার ‎কারণে গোসল করা ফরজ হয়ে যাবে কিংবা সে যদি পরিপূর্ণ পবিত্রতা ছাড়াই দুই পায়ে ‎দুই মোজা পরিধান করে থাকে, তাহলে তাকে তার দুই পা ধৌত করে সম্পূর্ণরূপে ‎পবিত্রতা অর্জন করবে।

আপনি পাঠ্য বিষয়টি সফলভাবে শেষ করেছেন।


পরীক্ষা শুরু করুন